কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত ৪ যাত্রীর একজনের পরিচয় মেলেনি এখনও, আহত ২৫০

ফাতেহ ডেস্ক

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলায় গতকাল গভীর রাতে ঢাকাগামী আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় মোট চারজন নিহত এবং আড়াইশোর মতো যাত্রী আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে তিনজনের পরিচয় মিলেছে। তারা হলেন–ফাহমিদা ইয়ামসিন ইভা, সানজিদা নাসিম ও মনোয়ারা বেগম। আর আহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর। এদেরকে মৌলভীবাজার সদর এবং সিলেট উসমানি মেডিক্যাল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল হক জানান, সানজিদা আক্তার বাগেরহাটের মোল্লারহাট উপজেলার ভানদর খোলা গ্রামের মো. আকরাম মোল্লার মেয়ে ও ফাহামিদা ইয়াসমিন ইভা সিলেটের দক্ষিণ সুরমার আবদুল্লাপুর এলাকার আবদুল বারীর মেয়ে এবং ফেঞ্চুগঞ্জের মাইজগাঁও শেখেরটিলার মৃত চেরাগ মিয়ার মেয়ে মনোয়ারা পারভীন লায়লন (৫৫)।

সোমবার সকালে তাহমিদা ও মনোয়ারার মরদেহ পরিবার নিয়ে গেছে। তবে অপর নিহত পুরুষের পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

রোববার রাত পৌনে ১২টার দিকে সিলেট থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনটি ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। দুর্ঘটনায় ট্রেনটির দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে খালে পড়ে যায় এবং একটি বগি উল্টে যায়।

যাত্রীদের চিৎকার শুনে পার্শ্ববর্তী বরমচাল বাজারে অবস্থানরত স্থানীয় বাসিন্দারা এগিয়ে আসেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে স্থানীয় মসজিদে মাইকিং করে উদ্ধারকাজে নামেন এলাকাবাসী। মাইকিং শুনে ঘর ছেড়ে ঘুম ভেঙে উদ্ধারকাজে নামেন আশপাশের আপামর জনতা।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সাতটি বগির মধ্যে দুটো ব্রিজের নিচে পড়েছে, লাইন থেকে ছিটকে পড়েছে দুটি। আর তিনটি লাইনচ্যুত হয়েছে।