তালাক দেয়ায় স্বামীকে দান করা কিডনী ফেরত চাইলেন স্ত্রী

তালাক দেয়ায় স্বামীকে দান করা কিডনী ফেরত চাইল স্ত্রী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

স্বামী কর্তৃক তালাকপ্রাপ্তা হওয়ার পর তুরস্কের এক নারী স্বামীকে দান করা কিডনি ফেরত চেয়েছেন স্বামীর কাছে।

তুরস্কের স্থানীয় ইংরেজী গণমাধ্যম আহভাল তাদের ৮ ফেব্রুয়ারির এক প্রতিবেদনে জানায়, মাভিস এরদোগান নামের ওই তালাকপ্রাপ্তা নারী তার স্বামীকে কিডনি দান করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে স্বামী তাকে রেখে অন্য নারীকে বিবাহ করেন। এবং তাকে তালাক প্রদান করেন। ফলে তিনি এখন স্বামীর নিকট তার দানকৃত কিডনী ফেরত চাইছেন।

এই দম্পতি ২০০৬ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ২০০৯ সালে স্বামীর কিডনি নষ্ট হলে তাকে নিজের কিডনি দান করেন স্ত্রী।

২০১৯ সালে স্বামী আহমেদ এরদোগান তাকে ও তার ১১ বছর বয়সী ছেলেকে রেখে পারিবারিকভাবে ঘনিষ্ঠ এক নারীর সাথে পালিয়ে যান।

মাভিস তুরস্কের জনপ্রিয় ডে টাইম টেলিভিশনের এক প্রোগামে বলেন, ‘আমি তাকে কিডনি দিয়েছি। কারণ, আমরা একসাথে জীবন শেয়ার করি।’ তিনি আরো বলেন, ‘সে তার পিতার নিকট, ভাইদের নিকট কিডনি চেয়েছিল, কিন্তু কেউ দেয়নি আমি ছাড়া।’

আহমেদ এরদোগান প্রোগ্রামের সাথে ফোনে যুক্ত হয়ে বলেন,  ‘তখন তার আমাকে কিডনি দেয়া উচিত ছিল না

উল্লেখ্য, তুর্কি আইনে কিডনি দেয়ার পর তা আর পুনরায় ফেরত চাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।