ফুটফুটে এই নবজাতকের বাবা নেই, মারা গেছেন চুড়িহাট্টার সেই ট্রাজেডিতে

ফুটফুটে এই নবজাতকের বাবা নেই, মারা গেছেন চুড়িহাট্টার সেই ট্রাজেডিতে

ফাতেহ ডেস্ক :

গত ২০ ফেব্রুয়ারি চকবাজারের চুরিহাট্টায় ভয়াবহ আগুনে পুড়ে নিজের দোকানেই মারা যান মাসুদ রানা ও মাহবুবুর রহমান রাজু নামের দুই সহোদর। এদের মধ্যে ছোটভাই রাজুর ঘরে ছিল তখন নববধূ। মাত্র ২৮ দিন আগে বিয়ে করেছিল রাজু। একসাথে দুই ভাইয়ের মৃত্যুতে এলাকায় নেমেছিল শোকের ছায়া। বড় ভাই রানার রয়েছে চার বছরের সামছুল আরেফীন নামের এক শিশু সন্তান। পিতা সাহেব উল্লাহ একসাথে দুই সন্তানকে হারিয়ে এখনো মানসিকভাবে সুস্থ হয়ে উঠেননি।

এদিকে বিয়ের মাত্র ২৮ দিনের মাথায় মারা যাওয়া রাজুর স্ত্রী আফরোজা সুলতানার কোলজুড়ে এসেছে নতুন অতিথি। গত ৯ নভেম্বর পুত্র সন্তানের মা হয়েছেন তিনি। জন্মের অনেক আগেই পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়া এই শিশু সন্তানের অনাগত ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে আবেগে আপ্লুত হচ্ছেন পরিবারের সদস্য ও আত্মীয় স্বজনসহ অন্যরাও। এই শিশুর দাদা তথা রাজুর বাবা সাহেব উল্লাহ তার নাতির জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। ছেলে চলে গেছে আল্লাহর ডাকে। তাই নাতির জন্য এই বৃদ্ধ বয়সের যেন তার ব্যকুলতার শেষ নেই। নিকটাত্মীয় স্বজনরা যারাই আসছেন প্রত্যেকের কাছেই তিনি তার এতিম এই শিশু নাতির জন্য দোয়া চাচ্ছেন।

নিহত রাজুর এক চাচা আবদুর রহীম। তিনি গিয়েছিলেন রাজধানীর মগবাজারের আদ দ্বীন হাসপাতালে। তিনি জানান, ফুটফুটে এই শিশু সন্তানকে দেখে চোখে পানি চলে আসে। আল্লাহর কোনো ফায়সালাকে তার বান্দা এড়িয়ে যাওয়ার কোনো উপায় নেই। রাজুর পরিবার সূত্র জানায়, নিহত রাজুর স্ত্রী আফরোজা সুলতানা ও তার সন্তানকে একদিন পরেই হাসপাতাল থেকে আফরোজার বাবার বাড়ি লালবাগে নেয়া হয়েছে। সপ্তাহ খানেক পরে তারা চলে আসবে রাজুদের চুড়িহাট্টার বাসায়।