স্থগিতের পরামর্শ, তাবলীগের কার্যক্রম বন্ধে নেই বাধ্যতামূলক নির্দেশনা

জুনায়েদ ইশতিয়াক 

দেশে করোনা ভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণের ঝুঁকির প্রেক্ষিতে তাবলীগ জামাতের কার্যক্রম স্থগিত করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কয়েকদিন আগেই। তবে আমল বন্ধে বাধ্যতামূলক সুনির্দিষ্ট কোন নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। বিশেষজ্ঞদের মতে এতে সংক্রমণের ব্যাপক আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

তাবলীগ জামাতের মুরুব্বীদের সাথে ঘনিষ্ঠ নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকটি সূত্র জানায়, তাবলীগ জামাত প্রচলিত আইন মেনেই কার্যক্রম পরিচালনা করে। সরকারের দিক থেকে কার্যক্রম স্থগিতের নির্দেশনা পাওয়ায় তারা তাবলীগ সংশ্লিষ্ট সকলকে মসজিদ ভিত্তিক আমল স্থগিতের পরামর্শ দিয়েছেন। পাশাপাশি যারা জামাতে আছেন, তাদেরকেও ফিরে যাবার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

‘তবে যেহেতু তাদের নির্দেশনা পরামর্শমূলক, তাতে কার্যক্রম বন্ধের বাধ্যতামূলক কোন নির্দেশনা নেই, তাই অনেকেই ব্যক্তিগতভাবে মসজিদ ভিত্তিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন, জামাত থেকেও সবাই ফিরে আসেননি। কার্যত সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে। ‘ তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

তাবলীগের দায়িত্বশীল ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ হান্নানকে ফোন করলে তিনি মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এর আগে মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) সকালে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আহ্বানে বাংলাদেশে শীর্ষ আলেমদের মতবিনিময় সভায় করোনাভাইরাসের কারণে মসজিদ বন্ধ না করে মুসল্লিদের উপস্থিতি সীমিত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন দেশের শীর্ষ আলেমগণ।

উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের শ্রী পেটালিং মসজিদ কমপ্লেক্সে তাবলীগ জামাতের অনুষ্ঠান থেকে মালয়েশিয়ায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ব্যাপক বিস্তার ঘটে। সেই প্রেক্ষিতে বাংলাদেশে তাবলীগ জামাতের কার্যক্রম স্থগিতের দাবী উঠান স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের অনেকেই।