ইসকনকে নিষিদ্ধ করে শাস্তির আওতায় আনার জোর দাবি আল্লামা আহমদ শফীর

ফাতেহ ডেস্ক

হিন্দুত্ববাদী উগ্র সংগঠন ইসকন কর্তৃক মুসলিম শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রসাদ বিতরণ এবং মন্ত্রপাঠে উদ্বুদ্ধ করার ঘটনা চরম দৃষ্টতাপূর্ণ মন্তব্য করে সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে অনতিবিলম্বে শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফি।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, মুসলিম ধর্মীয় চেতনাবোধে মারাত্মক আঘাত করেছে ইসকন। মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাসে এসব মন্ত্র মুখে উচ্চারণ করার কোনো প্রকারের বৈধতা নেই।

তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ী প্রত্যেক ধর্মাবলম্বী নিজ নিজ ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করতে পারবেন। তবে নিজেদের ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান অন্য ধর্মের কারও উপর চাপিয়ে দেয়া ধর্মীয় অধিকার ও অনুভূতিতে হস্তক্ষেপের শামিল, যা সংবিধান পরিপন্থী ও সুস্পষ্ট সংবিধান লঙ্ঘন।

হেফাজত আমির আরও বলেন, মুসলিম অধ্যুষিত দেশে কোমলমতি মুসলিম শিক্ষার্থীদের (হরে কৃষ্ণ হরে রাম, মাতাজি প্রসাদ কি জয়) শব্দ উচ্চারণ করিয়ে সুক্ষ্মভাবে ঈমান হরণের অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। এদেশে সকল ধর্মের মানুষের সহাবস্থান নিশ্চিত করতে এমন ঘৃণ্য কর্মকান্ডে জড়িতদের দ্রুত শাস্তি নিশ্চিত করে উগ্রবাদী সংগঠন ‘ইসকন’-এর সকল কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা সরকারের দায়িত্ব।

আল্লামা আহমদ শাহ শফী কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, অনতিবিলম্বে এ ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ ও ইসকনের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তা নাহলে আমাদের ঈমান-আকিদা রক্ষা ও দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুণ্ন রাখার স্বার্থে ইসকনসহ এ ধরনের উগ্রবাদী সংগঠনের কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে হেফাজতে ইসলাম এ দেশের সর্বস্তরের তৌহিদি জনতাকে সাথে নিয়ে বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষণা করতে বাধ্য হবে।

উল্লেখ্য, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের রথযাত্রা উপলক্ষে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ ইসকনের উদ্যোগে সপ্তাহব্যাপী (ফুড ফর লাইফ) কর্মসূচির আড়ালে গত ১১ জুলাই থেকে নগরীর প্রায় ৩০টি স্কুলের শিক্ষার্থীর মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। ইসকন কর্মীদের শেখানো মতে, কোমলমতি শিক্ষার্থীরা মন্ত্র পাঠ করে এ প্রসাদ গ্রহণ করে।