আয়া সোফিয়া

মানযূর আহসান

কতদিন বসফরাসের উপর দিয়ে

কাকের মত উড়ে যেতে যেতে

আমার হৃদয় তোমাকে চেয়ে চেয়ে

দেখেছে হে আয়া সোফিয়া!

 

মুহ্যমান ব্যথিত হৃদয়ের

অগণন হাহাকার গলে গলে

আমার চোখের কত নোনাজল

গড়িয়ে পড়েছে

তোমার পাশ দিয়ে বয়ে চলা

নীল পানির বসফরাসের বুকে…

 

অনন্য এক কাবার মত

কত না সোনালী সকাল,

কাকপোড়া রৌদ্রোজ্জ্বল দুপুর কিংবা

আলো ডুবো ডুবো ক্লান্ত সন্ধ্যায়

দেখেছি খুঁটিয়ে তোমায়

অন্য এক তাওয়াফের মত —

তুমি নাকি মিউজয়ম.. তুমি নাকি জাদুঘর!

 

একটিমাত্র সেজদা দেবার জন্য হে সোফিয়া

তোমার বুকে

হৃদয়ের বিপুল আবেগ, আর

চোখ ভরা অশ্রু সাথে করে

ছুটে ছুটে গিয়েছি বার-বার

তোমার গৌরবের দহলিজে

অথচ প্রতিবারই

এক অদৃশ্য আতাতুর্ক ও তার জীবিত প্রেতাত্মারা

কেমন উল্লাস করে করে বলেছে-

চলে যাও , চলে যাও

এ আর মসজিদ নয়, তোমাদের খোদার ঘর নয়

 

কিন্তু বিশ্বাস করো দীর্ঘ ছিয়াশিটি বছর

একটি মুহূর্তের জন্যেও মনে হয়নি-

তুমি মিউজিয়ম, মসজিদ নও!

তুমি জাদুঘর, আল্লার ঘর নও!