ভ্যাকসিনের স্বত্ত্ব মওকুফের প্রস্তাব বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

উন্নয়নশীল দেশগুলোকে করোনা মহামারী মোকাবিলায় সহায়তা করার জন্য বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতরা ভ্যাকসিনের স্বত্ত্বসহ অন্যান্য বুদ্ধিবৃত্তিক সুরক্ষা সহজ করার লক্ষ্যে একটি প্রস্তাব গ্রহণ করেছে।

তবে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত ওই প্রস্তাবনাটির বিরোধিতা করছে ওষুধশিল্পে প্রভাবশালী বিশ্বের ধনী দেশগুলো।

মঙ্গলবার বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্যানেলের দু’দিনের বৈঠকের উদ্বোধনী দিনে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের ওপর সাময়িক স্বত্ত্ব মওকুফের জন্য ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা যৌথভাবে একটি সংশোধিত প্রস্তাবনা উত্থাপন করা হয়েছে। প্রস্তাবটি চীন এবং যুক্তরাষ্ট্র সহ বিশ্বের ৬০-এর অধিক দেশের সমর্থন পেয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কিছু সদস্য দেশ এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছে। ইইউ শুক্রবার একটি বিকল্প প্রস্তাব দিয়েছে। বিকল্প প্রস্তাবটি বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বিদ্যমান বিধিগুলোর ওপর নির্ভর করেই দেওয়া হয়েছে।

২৭ দেশের সমন্বিত জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন জানিয়েছে, এই বিধিগুলি সরকারকে জরুরি ভিত্তিতে পেটেন্টধারীদের সম্মতি ছাড়াই তাদের দেশের উৎদনকারীদের উৎপাদন লাইসেন্স দেওয়ার অনুমতি দেয়।

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনে উৎসাহিত এডভোকেসি গ্রুপগুলো এই পরিকল্পনাটিকে সমর্থন দিয়েছে এবং জোর দিয়ে বলেছে, যারা এর বিরোধী, তাদের কথা মতো কাজ করা যাবে না।

নোবেল শান্তি পুরষ্কারপ্রাপ্ত সংস্থা ডক্টর্স উইদাউট বর্ডারস অভিযোগ করেছে, গত সোমবার স্বত্ত্ব মওকুফের প্রস্তাব বিলম্বিত করার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন সুইজারল্যান্ড, নরওয়েসহ কয়েকটি দেশকে দায়ী করেছে।

তবে ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থাগুলির দাবি, স্বত্ত্ব মওকুফের ফলে গবেষকদের এবং উদ্যোক্তাদের বেশ ক্ষতি হতে পারে। পরবর্তীতে তারা এমন কাজে আগ্রহ হারাতে পারেন। তারা মনে করে, ধনী দেশগুলো উন্নয়নশীল বিশ্বের স্বাস্থ্যকর্মীদের ও ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর সাথে ভ্যাকসিন শেয়ার করলে, টিকাদান কার্যক্রম আরও বেগবান হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বরাবরই ভ্যাকসিনের অসম বণ্টনের বিরুদ্ধে উদ্বেগ জানিয়ে আসছে।

সূত্র : ইউএনবি

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদমিয়ানমারের পূর্বাঞ্চলে সংঘর্ষে গৃহহীন প্রায় ১ লাখ মানুষ : জাতিসঙ্ঘ
পরবর্তি সংবাদএ মুহূর্তে হজ নিয়ে কোনো চিন্তা করছি না: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী