মাওলানা মুহিউদ্দীন খান : সাংবাদিকতায় পথপ্রদর্শক আলেম

আবু জর:

জন্ম ও পরিচয়

মাওলানা মুহিউদ্দিন খান। একটি নাম, একটি ইতিহাস। যেকোনো একটি পরিচয়ের ভেতর তাঁকে আটকে ফেলার সাধ্য নেই। এমন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী, সব্যসাচী আলেম আমাদের এই অঞ্চলে খুব কমই জন্মেছেন। তিনি একাধারে ছিলেন সাংবাদিক, সাহিত্যিক, অনুবাদক, ইসলামী চিন্তাবিদ, বহু গ্রন্থ প্রণেতা ও মাসিক মদীনা সম্পাদক। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ১৯৩৫ সালের ১৯ এপ্রিল কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার ছয়চির গ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। পৈতৃক নিবাস ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার আনসার নগরে। পিতা বিশিষ্ট সাধক পুরুষ, প্রবীণ শিক্ষাবিদ মৌলভী হাকিম আনছার উদ্দিন খান, মাতা মোছাঃ রাবেয়া খাতুন।

শিক্ষাজীবন

পাঁচবাগ ইসলামিয়া সিনিয়র মাদরাসার প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হন । মাতার ইন্তিকালের পর তিনি নানীর তত্ত্বাবধানে থাকায় নানাবাড়ির নিকটবর্তী তারাকান্দি মাদরাসায় ১৯৪৭ ঈসায়ীতে ভর্তি হন। কিন্তু সেখানে মন বসাতে না পারায় তিনি দু বছর পর আবার পাঁচবাগ মাদরাসায় ফিরে আসেন। পাঁচবাগ মাদরাসা থেকে ১৯৫১ সালে আলিম ও ১৯৫৩ সালে স্কলারশিপসহ ফাজিল পাস করেন। ১৯৫৩ সালে ঢাকা সরকারি আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন। ১৯৫৫ সালে হাদিস বিষয়ে কামিল ও ১৯৫৬ সালে ফিকহ বিষয়ে কামিল ডিগ্রি লাভ করেন। আলিয়া ধারায় লেখাপড়া করলেও খান সাহেব কওমি ধারার সাথে বেশি সম্পর্ক রেখে চলতেন।

কর্মজীবন

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছাত্রজীবনেই সাংবাদিকতা ও সহিত্যচর্চার দিকে ঝুঁকে পড়েন। তিনি ১৯৬০ সালে ‘মাসিক দিশারী’, ১৯৬৩ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত ‘সাপ্তাহিক নয়া জামানা’ সম্পাদনা করেন। ১৯৬১ সাল থেকে আমৃত্যু ‘মাসিক মদীনা’ সম্পাদনা করেছেন। এক সময় তার সম্পাদিত ‘আজ’ সাহিত্য মহলে সাড়া জাগায়। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ১৯৮৮ সালে সৌদিভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘রাবেতায়ে আলমে ইসলামী’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিযুক্ত হন। এর মাধ্যমে তিনি আন্তর্জাতিক মহলেও পরিচিত হয়ে ওঠেন। দেশের বাইরেও বাংলাভাষীরা তার গুণমুগ্ধ পাঠক। বিশেষত পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ত্রিপুরাসহ প্রবাসে মরহুম খান নন্দিত লেখকের মর্যাদা পেয়েছেন। এছাড়াও তিনি ছিলেন মু’তামার আল আলম আল ইসলামী এর বাংলাদেশ শাখার প্রেসিডেন্ট, জাতীয় সীরাত কমিটি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, নাস্তিক-মুরতাদ প্রতিরোধ আন্দোলন ইসলামী মোর্চার সভাপতি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশর সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরামের প্রধান।

কারনামা

প্রতিভাধর মাওলানা মুহিউদ্দীন খান বাংলা ভাষায় ইসলামি সাহিত্য রচনা, সম্পাদনা ও প্রকাশনার ক্ষেত্রে অনন্যসাধারণ ভূমিকা পালন করেছেন। বাংলা ভাষায় সিরাত সাহিত্যের বিকাশে তার অবদান অবিস্মরণীয়। হজরত মুহাম্মদ মোস্তফা সা. সাহিত্যের আলাদা একটা বিষয় হতে পারেন; এবং সেটা হতে পারে অতুলনীয়, এই ধারণার বাস্তবতা দিয়েছেন তিনি। আজ সিরাত সাহিত্য বাংলা ভাষায় একটি সমৃদ্ধ শাখা।

তিনি প্রায় ১০৫ খানা গ্রন্থ অনুবাদ ও রচনা করেছেন। পবিত্র কুরআনকে বাংলাভাষীদের মধ্যে জনপ্রিয় করে তুলতে মরহুমের ভূমিকা প্রতিষ্ঠানতুল্য। তার সম্পাদিত ‘মাসিক মদীনা’র প্রশ্নোত্তর সঙ্কলন ‘সমকালীন জিজ্ঞাসার জবাব’ ২০ খণ্ডে প্রকাশিত হয়েছে। মাসিক মদীনা লাখো মানুষকে বছরের পর বছর ইসলামি সাহিত্যের মৌলিক ধারার সাথে সম্পৃক্ত রেখেছে। মাসিক মদীনা এবং মাওলানা মুহিউদ্দীন খান যেন অভিন্ন এক পরিচিতি। আল্লামা মুফতি মুহাম্মদ শফী রহ. বিরচিত ৮ খণ্ডের কালজয়ী তাফসির গ্রন্থ ‘মাআরিফুল কুরআন’ তিনি উর্দু থেকে বাংলায় ভাষান্তর করেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে এটি প্রকাশিত হয়।

১৪১৩ হিজরীতে মদীনাস্থ বাদশাহ ফাহাদ কুরআন মুদ্রণ প্রকল্পের উদ্যোগে ‘মাআরিফুল কুরআন’ সংক্ষিপ্তাকারে ১খণ্ডে বাংলায় ছেপে সারা দুনিয়ায় বাংলাভাষীর মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। ইমাম গাজালীর ‘ইহয়াউ উলুমিদ্দিন’ ও মাওলানা আবুল কালাম আযাদের ‘ইনসানিয়ত মওত কে দরওয়াযে পর’ ( জীবন সায়াহ্নে মানবতার রূপ) গ্রন্থের স্বার্থক অনুবাদক মাওলানা মুহিউদ্দিন খান রহ.। তাঁর প্রতিষ্ঠিত মদীনা পাবলিকেশন্স ১৯৫৭ সাল হতে এ পর্যন্ত কুরআন, হাদীস, সীরাতে রাসূল, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও অভিধান বিষয়ক ৬০০ মানসম্মত গ্রন্থ প্রকাশ করেছে।

রাজনৈতিক জীবন

১৯৭০ সালে অনুষ্ঠিত পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে ময়মনসিংহের গফরগাঁও নির্বাচনী এলাকায় জমিয়তের প্রার্থী হিসেবে খেজুরগাছ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। স্বাধীনতার পর ১৯৭৬ সালের সম্মেলনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে জমিয়তের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে তিনি নির্বাহী সভাপতির দায়িত্ব লাভ করেন। মরহুম ইসলামী ঐক্যজোটের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

ইন্তেকাল

শেষ বয়সে বার্ধক্যজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন শয্যাশায়ী ছিলেন। তীব্র শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হন। ঢাকার ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অতঃপর সেখান থেকে অচেতন অবস্থায় আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। ২৫ জুন, ২০১৬ রোজ শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় রাজধানীর কাকরাইল ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

পরদিন বাদ জোহর বায়তুল মোকাররমে জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।