মুখবেঁধে শিশু ভাতিজিকে ধর্ষণ করল আপন চাচা

ফাতেহ ডেস্ক

আজিজুল হক নামে ১৮ বছর বয়সের এক যুবক আপন ভাতিজিকে মুখ বেঁধে ধর্ষণ করেছে। গুরুতর অবস্থায় ওই শিশুটিকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গাজীপুরের শ্রীপুরে ঘটেছে এমন পৈশাচিক ঘটনা।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার দিবাগত রাতে নির্যাতনের শিকার শিশুটির বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। মামলার পর বুধবার দুপুরে ধর্ষক আজিজুল হককে গ্রেফতার করেছে শ্রীপুর থানা পুলিশ।

স্বজনরা জানায়, শিশুটির মা-বাবা দুজনই স্থানীয় একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক। প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার সকালে স্বজনদের কাছে শিশুটিকে রেখে কারখানায় যান তারা। দুপুরে বাড়ির উঠানে শিশুটি খেলা করছিল। এ সময় তার চাচা আজিজুল হক চকলেট কিনে দেয়ার কথা বলে তাকে কোলে নিয়ে বাইরে যায়। ঘণ্টাখানেক পরও ফিরে না আসায় স্বজনরা তাদের খোঁজাখুঁজি শুরু করে। পরে ফোনে শিশুটির বাবা-মাকে বিষয়টি জানানো হয়।

শিশুর বাবা জানান, মেয়েকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না জেনে ওর মা কারখানা থেকে দুপুরেই বাড়িতে ছুটে যায়। খোঁজাখুঁজির পর দুপুর ২টার দিকে পাশের গড়গড়িয়া মাস্টারবাড়ি এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম পাশের একটি সেতুর কাছে ঝোঁপের ভেতর তাদের পাওয়া যায়। এ সময় বিবস্ত্র ও মুখ বাঁধা অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। তবে সুযোগ বুঝে আজিজুল পালিয়ে যায়।

শিশুটির বাবা জানান, রক্তাক্ত অজ্ঞান অবস্থায় তার মেয়েকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে (শিশু) গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, ধর্ষণের ঘটনায় মামলার পরপরই অভিযুক্তকে গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়। বুধবার দুপুরে উপজেলার বেলতলী গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ধর্ষক আজিজুলকে কারাগারে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে বলেও জানান তিনি।