যে বিনিময়ে আর্মেনীয় ১৫ যুদ্ধবন্দীকে মুক্তি দিল আজারবাইজান

আজারবাইজান, আর্মেনিয়া, যুদ্ধবন্দী, Azerbaijan, Armenia, prisoners of war, bd newspaper, www.dailynayadiganta.com

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

আর্মেনিয়ার দখলমুক্ত করা কারাবাখ অঞ্চলের আগদামে আর্মেনীয় বাহিনীর পুঁতে রাখা মাইনের মানচিত্রের বিনিময়ে ১৫ যুদ্ধবন্দীকে মুক্তি দিয়েছে আজারবাইজান। শনিবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে জানানো হয়, আজারবাইজান-জর্জিয়া সীমান্তে জর্জিয়ান কর্মকর্তাদের সহায়তায় বন্দীদের আর্মেনিয়ার কাছে হস্তান্তর করা হয়। এর বিনিময়ে আগদাম অঞ্চলে পুঁতে রাখা ৯৭ হাজার মাইনের চিহ্নযুক্ত মানচিত্র সরবরাহ করে আর্মেনিয়া।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘মাইনের মানচিত্র পাওয়ার মাধ্যমে মাইন অপসারণকারী কর্মীরাসহ আমাদের হাজার হাজার নাগরিকের জীবন ও স্বাস্থ্য সুরক্ষিত থাকবে। সাথে সাথে আগদামে আজারবাইজান প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট জনাব ইলহাম আলিয়েভের পুনর্নির্মাণ প্রকল্প ও বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের ঘরে ফেরাকে তরান্বিত করবে।’

প্রায় তিন দশক আর্মেনিয়ার দখলে থাকা নাগরনো কারাবাখ ও সন্নিহিত অঞ্চল গত বছর এক যুদ্ধের পর যুদ্ধবিরতির শর্ত অনুসারে আজারবাইজানের দখলে আসে। দখলমুক্ত করা এই ভূখণ্ডে আর্মেনীয় সৈন্যদের ফেলে যাওয়া মাইনের বিস্ফোরণে বিভিন্ন সময় সাত সৈন্যসহ ২৭ আজারবাইজানি নাগরিক নিহত হয়েছেন।

১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতার পর থেকেই আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছে। ১৯৯৪ সালে আজারবাইজানের ভূমি হিসেবে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত নাগরনো-কারাবাখ ও এর কাছাকাছি আরো সাতটি অঞ্চল আর্মেনিয়া দখল করে নিলে এই উত্তেজনা বাড়ে।

গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর, আর্মেনিয়া আজারবাইজানের সামরিক বাহিনী ও সাধারণ মানুষের ওপর হামলা করলে দুই দেশ নতুন করে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে।

৪৪ দিনের যুদ্ধে আর্মেনিয়ার দখল থেকে মুক্ত করে আজারবাইজান বিভিন্ন শহর ও অন্তত তিন শ’ জনবসতি ও গ্রামের নিয়ন্ত্রণ নেয়, যা প্রায় তিন দশক আর্মেনীয় দখলের অধীনে ছিল। যুদ্ধ বন্ধ করতে ও সংঘাতে দীর্ঘস্থায়ী সমাধানের উদ্দেশে দেশ দু’টি রাশিয়ার মধ্যস্থতায় ১০ নভেম্বর একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। রাশিয়ার মধ্যস্থতায় সম্পাদিত যুদ্ধবিরতি চুক্তিটি আজারবাইজানের জয় ও আর্মেনিয়ার পরাজয় হিসেবে মনে করা হয়। চুক্তিটির ফলে আর্মেনিয়াকে নাগরনো-কারাবাখ ও সন্নিহিত দখলকৃত আজারাবাইজানি ভূমি থেকে তাদের সশস্ত্র বাহিনীকে সরিয়ে ফেলতে হচ্ছে।

যুদ্ধবিরতি তদারকে তুরস্ক ও রাশিয়ার মধ্যে স্মারক চুক্তির আওতায় নাগরনো কারাবাখের আগদাম অঞ্চলে একটি যৌথ মনিটরিং সেন্টার চালু করা হয়েছে। যৌথ এই মনিটরিং সেন্টার থেকে তুরস্ক ও রাশিয়ার সেনাবাহিনী যৌথভাবে যুদ্ধবিরতি তদারকি করছে।

সূত্র : ইয়েনি শাফাক

 

আগের সংবাদএসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার বিকল্প চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী
পরবর্তি সংবাদনেতানিয়াহু যুগের অবসান, ইজরাইলে নতুন সরকার