আফগানে আলোচনায় আগ্রহী আমেরিকা, শীঘ্রই হবে কোন সমাধান?

জুনায়েদ ইশতিয়াকঃ 

আমেরিকা আফগানিস্থানে পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিতে চাচ্ছে গত প্রায় আঠারো বছর ধরেই। তবে যুদ্ধের মেয়াদ বাড়তে থাকলেও আফগান যুদ্ধ থেকে নিজের স্বার্থ উদ্ধারসহ প্রস্থানের কোন সহজ পথ তাদের সামনে নেই। ফলে বাড়ছে যুদ্ধের ব্যয় ও প্রাণহানি। ফলে আমেরিকানরা যথাসম্ভব সহজে এই যুদ্ধ থেকে বের হতে চাচ্ছে।

গতকাল এক আকস্মিক সফরে আফগানিস্থানের রাজধানী কাবুলে পৌঁছেছেন আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পাম্পিও। তিনি বলেন,  ভবিষ্যতে আফগানিস্থানে তার দেশের সেনাদের ভূমিকাসহ তালেবানদের দাবী বিষয়ে তারা আলোচনা করতে আগ্রহী। আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনীর সাথে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই কথাগুলো বলেন। সংবাদ আল জাজিরার।

তিনি দাবী করেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কৌশল পরিকল্পনা অনুযায়ী অগ্রসর হচ্ছে। তিনি আমেরিকাপন্থী আফগান সরকারের তালেবানদের সাথে আলোচনার চেষ্টাকেও স্বাগত জানান।

অবশ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, আফগানিস্থানের সমাধান অতটা সহজ নয়। দেশী দোসরদের বাঁচাতে বিদেশী বাহিনীগুলো আফগান সহসাই ছাড়বেনা। পাশপাশি দেশী দোসরদের সাথে ইসলামপন্থীরা দ্রুত কোন বুঝাপড়ায় যেতে পারবে বলেও মনে হয়না। দীর্ঘদিনের রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের স্মৃতি তো আছেই, পাশাপাশি ইসলামপন্থীরা যে রাষ্ট্র ব্যবস্থা দাবী করে, তার সাথে দোসরদের রাষ্ট্র ব্যবস্থার ব্যবধান অনেক।

অবশ্য এখানেই জটিলতা শেষ নয়। আইএসসহ বেশ কিছু উগ্র সংগঠনেরও বিস্তার ঘটেছে আফগানিস্তানে, যারা কোনভাবেই যুদ্ধ থেকে বিরত থাকতে রাজী হবেনা, পাশাপাশি ভারত, পাকিস্তান, ইরান, রাশিয়া ও চীনসহ প্রভাবশালী আঞ্চলিক রাষ্ট্রগুলোও তাদের স্বার্থ ও সুবিধার জন্য আফগানিস্থানে কোন সহজ সমাধানে রাজী হবেনা।

এসব কিছু মিলিয়ে বলা যায়, আফগানিস্থানের অঙ্ক খুব একটা সহজ নয়।