ক্ষমতায় এলে পাকিস্তানে ইসলামি আইন চালু করবো: মাওলানা ফজলুর রহমান

ওমর ফারুক: পাকিস্তানের মুত্তাহেদা মজলিসে আমলে প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান বলেছেন, ‘পাকিস্তানকে ৭০ বছর ধরে ধর্মহীন শক্তিই শাসন করে আসছে। এর ফলে এ দেশে ইসলামি শাসন প্রতিষ্ঠা হয়নি। আপনারা ভোটের টিকেট ব্যবহার করে এমএমএকে ক্ষমতায় নিয়ে আসেন। আমরা ইসলামি আইন পরিপূর্ণভাবে প্রতিষ্ঠা করবো।’

এক নির্বাচনি জনসভায় ভাষণ দেওয়াকালে এমএমএ এর প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান এ কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা দেশ থেকে সন্ত্রাসবাদ দূর করাসহ সকল সঙ্কট দূর করে দেবো। এসময় তিনি ইমরান খানকে ইহুদিদের এজেন্ট বলেও আখ্যায়িত করেন।

তিনি বলেন, সে লন্ডনে মেয়র নির্বাচনে পাকিস্তানি বংশদ্ভূত প্রার্থী সাদেক খানের বিরুদ্ধে যেয়ে ইসরায়েলি বংশদ্ভূত প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালায়। মাওলানা ফজলুর রহমান আরও বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে তার সীমাতেই থাকা উচিত। খতমে নবুওয়াত ইস্যুকে যেন না আনা হয়। তাহেলে এটাই হবে তাদের জন্য মঙ্গলজনক। ব্যক্তিগত মতামত মূর্খতার অপর নাম। এসব লোকরাই ইসলামি শাসনের বিরোধিতা করে। তারা পাকিস্তানের নাম থেকে ইসলাম নাম বাদ দিয়ে শুধু প্রজাতান্ত্রিক পাকিস্তান বানাতে চায়। তেহরিকে ইনসাফ কাদিয়ানিদের থেকে সহযোগিতা নিয়েছিল। এর পরিবর্তে খতমে নবুওয়াত আইনে পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

মাওলানা ফজলুর রহমান আরও বলেন, তেহরিকে ইনসাফ তাদের সময়ে না একটি বিশ্ববিদ্যালয় বানিয়েছে না ডিম বানিয়েছে। আমরা দেরাকে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েছি, হাসপাতাল বানিয়েছি ও সিআরবিসি বানিয়ে এ এলাকার উন্নয়ন ঘটিয়েছি। মাওলানা ফজলুর রহমান আরও বলেন, পার্লামেন্টে কয়েকবার ইসলামি আইন বাতিল ও সম্পাদনার চেষ্টা করেছিল। তারা সংখ্যায় কম হওয়ার কারণে ব্যর্থ হয়েছে। সূত্র: ডেইলি পাকিস্তান

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদনারী আইনজীবীর থাপ্পড়ের শিকার মুফতিকে ১৪ দিনের কারাদণ্ড, সমালোচনার ঝড়
পরবর্তি সংবাদআব্দুল মালেক সাহেবের বক্তব্য, থামছেইনা মাসঊদ অনুসারীদের বিরোধিতা