ফিলিস্তিনি-ইসরায়েল সংঘাত: নিহত ৫, অস্ত্রবিরতিতে সম্মত হামাস

ফাতেহ২৪: ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে ২০১৪ সালের যুদ্ধের পর প্রথমবারের মতো গাজা ফ্রন্টে একজন ইসরাইলি সৈন্য নিহত হয়েছে। অন্যদিকে, গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি বিমান হামলায় চার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এদিকে গাজায় ইসরায়েলের অব্যাহত বিমান হামলার পর অস্ত্র বিরতিতে সম্মত হয়েছে হামাস। শনিবার সংগঠনের একজন মুখপাত্র এ খবর জানিয়েছেন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর ব্যাপক বিমান হামলার পর হামাসের পক্ষ থেকেও এর জবাব দেয়া হয়েছে।

হামাসের মুখপাত্র ফাউজি বারহুম রয়টার্সকে বলেন, ‘মিশর ও জাতিসংঘের প্রচেষ্টায় ইসরাইলি এবং ফিলিস্তিনি দলগুলোর মধ্যে শান্তির যুগে ফিরতে হামাস সম্মত হয়েছে।’

তবে, অস্ত্রবিরতির ব্যাপারে ইসরাইল কোনো মন্তব্য করেনি।

ইসরাইলি সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র জানান, শুক্রবারের সংঘর্ষের সময় গাজা সীমান্তের কাছে ফিলিস্তিনি বন্দুকধারীদের গুলিতে তাদের একজন সৈন্য নিহত হয়েছেন। ওই সৈনিকের মৃত্যুর খবর তার পরিবারকে জানানো হয়েছে।

ইসরাইল ও হামাসের মধ্যে ২০১৪ সালের যুদ্ধের পর প্রথমবারের মতো গাজা ফ্রন্টে ইসরাইলি সেনা নিহত হলো বলে তিনি জানান।

ইসরাইলি হামলায় চার ফিলিস্তিনিও নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে হামাসের সশস্ত্র উইং ইজেদিন আল-কাসাম ব্রিগেডের তিন সদস্য রয়েছে।

হামাস নিহত তিন ব্যক্তির নাম প্রকাশ করেছে। তারা হলেন, শাবান আবু খাতের, মোহাম্মদ আবু ফারহানা এবং মোহাম্মদ কেশতা।

ইসরাইলি সামরিক বাহিনী জানায়, গাজা উপত্যকার উত্তরে হামাসের ১৫টি সামরিক লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানো হয়। এ ছাড়া খান ইউনিস এলাকায় ২৫ লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালায় ইসরাইল। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত হামলা চলছে।

ফিলিস্তিনিরা সীমান্তে ১৭ সপ্তাহ ধরে বিক্ষোভ করছে। এই সময়ের মধ্যে ১৩০ জনের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত ও ১৫ হাজার মানুষ আহত হয়। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ইসরাইলের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত বলপ্রয়োগের অভিযোগ এনেছে।

সূত্র: হারেৎজ

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদসৌদি আরবে প্রাচীন মসজিদের সন্ধান
পরবর্তি সংবাদজম্মু কাশ্মীরে ধর্মীয় টিভিসহ ৩০টি আন্তর্জাতিক চ্যানেলে নিষেধাজ্ঞা