ইসলামি রীতিনীতির বিরোধিতাকারীরা দেশ ও জাতির শত্রু : মাওলানা রুহী

ফাতেহ ডেস্ক 

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী বলেছেন, ইসলামি রীতিনীতির বিরোধিতাকারীরা দেশ ও জাতির শত্রু। কারণ এদেশের মানুষ অত্যন্ত ধর্মপ্রাণ ও দেশপ্রেমিক। সবাই দেশ ও ধর্মের বিষয়ে ঐক্যবদ্ধ। বাংলাদেশ একটি মুসলিমপ্রধান দেশ হিসাবেও সারা বিশ্বে পরিচিত। তাই যারা ধর্মের বিরোধিতা করে দেশে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির পায়তারা করছে তারা দেশ ও জাতির শত্রু।

গতকাল বাদ আসর চট্রগ্রাম বহদ্দারহাটস্থ খাঁন কিচেন রেষ্টুরেন্টে ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে আয়োজিত গুণীজন সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাওলানা রুহি আরও বলেন, ইসলাম কোনো ধরনের জঙ্গিবাদ বা সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করেনা। এদেশের ওলামায়ে কেরাম শহর থেকে মফস্বল, সব জায়গায় সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কথা বলে যাচ্ছে, কিন্তু পীযূষ বন্দোপাধ্যায়ের মতো কিছু ভিনদেশী এজেন্ট বুদ্ধিজীবি সেই ওলামায়ে কেরামকে জঙ্গি এবং ইসলামী রীতিনীতিকে জঙ্গির লক্ষ্মণ বলে অপপ্রচার করছে।

মাওলানা রুহী বলেন, অনেক বুদ্ধিজীবী কওমি মাদ্রাসা ও আলেম সমাজকে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা-বিরোধী বলে অপপ্রচার করে। এদের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া উচিৎ। তাই কওমি মাদরাসা এবং কওমি আলেম সমাজকে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতা আন্দোলনের সঠিক ইতিহাস চর্চা করতে হবে। এবং মুক্তিযুদ্ধে ওলামায়ে কেরাম অবধান ও অংশগ্রহণের ইতিহাসগুলো দেশ ও জাতির কাছে তুলে ধরতে হব।

তিনি বলেন, এদেশের ওলামায়ে কেরাম ও কওমি মাদ্রাসাগুলো মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা এদেশের জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করেছি। দেশ বিরোধী শক্তির মোকাবিলায় এদেশের ওলামায়ে কেরাম ঐক্যবদ্ধ আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে ইনশাআল্লাহ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে হেফাজতের ভারপ্রাপ্ত অর্থ সম্পাদক, ইসলামী ঐক্যজোট চট্টগ্রাম মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা হাজী মুজাম্মেল হক বলেন, মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম তাবলীগ জামাতে আজ অনৈক্য সৃষ্টি করে দাওয়াতে তাবলীগের মেহনত বন্ধ এবং তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা বাংলাদেশ থেকে সরিয়ে নিতে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।
এখন আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে তাবলীগ জামাতের ঐক্য ধরে রাখতে হবে।

বিশেষ অতিথি আল্লামা আবুল খাইর রহঃ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মাওলানা সোহাইল সালেহ বলেন, সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবে এগিয়ে যেতে হলে আমাদেরকে আমিত্ববোধ পরিহার করতে হবে। নিজেকে ছোট মনে করলে আল্লাহ পাক অনেক বড় করে দেন এবং অনেক কাজ করার সুযোগও তৈরি হয়।

মাওলানা সালেহ আরো বলেন, পবিত্র রমজানের শিক্ষা নিয়ে আমাদেরকে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদের আলেম সমাজকে মনবতার সেবায় এগিয়ে আসতে হবে।

ইসলামী ছাত্র খেলাফত কেন্দ্রীয় সহসেক্রেটারী ও চট্রগ্রাম মহানগর সভাপতি ওসমান কাসেমীর সভাপতিত্বে ও মহানগর সেক্রেটারী আবুল কাসেমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে আরো বক্তব্য রাখেন, ইসলামী ঐক্যজোটের চট্রগ্রাম মহানগর সহ-সভাপতি মাওলানা আমিন শরীফ, মাওলানা মুহাম্মদ আলমগীর, যুগ্ম সেক্রেটারি মাওলানা আ.ন.ম আহমদ উল্লাহ, মাওলানা শেখ মুহাম্মদ আবু তাহের, মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুচ, মাওলানা ইকবাল খলিল, মাওলানা রফিকুল ইসলাম বোয়ালী, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, ইসলামী ছাত্র খেলাফত মহানগর সহ সভাপতি আতিক মুহাম্মদ, আবরার সালেহ, মাওলানা সাইফুল ইসলাম, মুহাম্মদ ইয়াছিন, মুহাম্মদ তাফসিরুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল মামুন, কামরুল ইসলাম, মুনিরুল ইসলাম, হাবিব উল্লাহ, নাজমুল হাসান, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের চট্টগ্রাম মহানগর সেক্রেটারি মোস্তাফিজুর রহমান, দক্ষিন জেলা সভাপতি ফোরকান উল্লাহ, হাটহাজারী সভাপতি শহিদুল্লাহ কাউছার, ইরশাদ সিকদার, মামুন সাঈদ, মাসূদ রানা প্রমুখ।

মাহফিলে বাংলাদেশে রাজনৈতিক ও সমাজিকভাবে অবিস্মরণীয় অবদান রাখাই বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবকদের সম্মাননা স্মারক প্রধান করা হয়।