সৌদি ও কাতার কি যুদ্ধে জড়াচ্ছে?

আল জাজিরাসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্টে বলা হচ্ছে, নিরাপত্তার স্বার্থে কাতার সরকার রাশিয়া থেকে যে এফ ৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র কিনতে চেয়েছে, তা বিক্রির পরিকল্পনা থেকে সরছে না রাশিয়া। এদিকে মিসাইল বিক্রি করা হলেই কাতারে হামলার হুমকি দিয়েছেন সৌদি আরবের বাদশা সালমান।

এবিষয়ে তিনি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টকে চিঠি লিখেছেন। চিঠিতে অনুরোধ করা হয়েছে, ফ্রান্স সরকার যেন কাতারকে ক্ষেপণাস্ত্র কেনা থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করেন। চিঠিতে সৌদি বাদশা লিখেছেন, পরিস্থিতি কঠিন হলে কাতারে সেনা অভিযান চালানো হবে। ফরাসি সংবাদপত্রে সেই চিঠি প্রকাশ হওয়ার পরই শোরগোল পড়ে যায় আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে।

মধ্যপ্রাচ্য বিশেষজ্ঞদের ধারণা, পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে সৌদি আরব বৃহত্তম ক্ষমতাশালী রাষ্ট্র। তার পূর্ব সীমায় থাকা কাতার একটি ক্ষুদ্র রাষ্ট্র। সেই রাষ্ট্র যদি এফ ৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র কেনে তাহলে তা বেশ চিন্তারই কারণ সৌদি আরবের জন্য। এই ক্ষেপণাস্ত্র কিনতে মরিয়া কাতার সরকার। রাশিয়ার সঙ্গে তাদের কথাও চলছে।

ফ্রান্স বা কাতার সরকার এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করেনি। তবে কাতারে এ নিয়ে বেশ ভীতির সৃষ্টি হয়েছে। সৌদির মতো বড় কোন রাষ্ট্রের মোকাবেলা কাতারের জন্য বেশ কঠিন।

অবশ্য অনেকে এক্ষেত্রে রাশিয়ার অর্থনৈতিক ও সামরিক স্বার্থ দেখছেন। কাতারের পাশাপাশি সৌদিও এফ ৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র কিনতে চাচ্ছে। দুই দেশের মধ্যে চলমান বিবাদ উস্কে দেওয়া গেলে রাশিয়া ও ফ্রান্স মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতিতে আরও ভালোভাবে প্রবেশ করতে পারবে, পর্যবেক্ষকরা এমনটাই মনে করছেন।

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদসব রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নিতে রাজি মিয়ানমার
পরবর্তি সংবাদফিলিস্তিনি মেডিকেলকর্মী হত্যার প্রতিশোধে ইসরাইলে রকেট হামলা