যে কারণে জিতলেন ইমরান খান

ফাতেহ ডেস্ক: পাকিস্তানকে যিনি ক্রিকেটে একদিন বিশ্বসেরা করেছিলেন, সেই ইমরান খানই এবার হতে যাচ্ছেন সে দেশের প্রধানমন্ত্রী। বাইশ গজ থেকে রাজনীতির সর্বোচ্চ মসনদে।

উপমহাদেশের প্রথম কোনো ক্রীড়াবিদ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার নজির সৃষ্টি করতে চলেছেন ‘কিং খান’। ফের একবার প্রমাণিত হয়ে গেল, তিনি শুধু মাঠের মধ্যে নয়, মাঠের বাইরেও দারুণ সপ্রতিভ এক অধিনায়ক। নতুন ইনিংস শুরু করার আগে ৬৫ বছর বয়সী ইমরানকে ঘিরে তাই আবেগে উদ্বেল পাকিস্তানের ক্রীড়া মহল।

দুর্দান্ত ক্রিকেটার হিসেবেই বিশ্বের সামনে প্রথম পরিচিত হয়েছিলেন ইমরান খান। কিন্তু তারপর থেকে কখনো তিনি প্লেবয়, কখনো সমাজসেবী, কখনো রাজনীতিবিদ, আবার কখনো বা চরমপন্থী নাগরিক। ইমরান খানকে একটি পরিচয়ে বেঁধে রাখা কঠিন।

১৯৫২ সালের ৫ অক্টোবর লাহোরে জন্মগ্রহণ করেন ইমরান খান। তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক। সাতের দশকের শেষ দিকের বেশিরভাগটাই তার কেটেছে লন্ডন শহরে। পড়াশুনার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ক্রিকেট খেলে গিয়েছেন তিনি।

ছোটবেলা থেকেই খেলাধুলার প্রতি অত্যন্ত আকৃষ্ট ছিলেন তিনি। ১৯৬৮ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে লাহোরের হয়ে সারগোরার বিরুদ্ধে প্রথম ফার্স্ট ক্লাস ম্যাচ খেলেন ইমরান। ক্রিকেটের প্রতি ইমরান খানের আগ্রহ এবং লড়াকু মনোভাবই তাকে দ্রুত স্থান করে দেয় পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দলে।

১৯৭০ সালে যখন তিনি পাকিস্তান দলে ডাক পান, তখনো তার পড়াশোনাই শেষ হয়নি। অসামান্য প্রতিভার দৌলতে সাফল্যের শিখর স্পর্শ করতে খুব বেশি সময় লাগেনি ইমরানের।

সাতের দশকে কপিল দেব, ইমরান খান, রিচার্ড হ্যাডলি ও ইয়ান বোথাম ছিলেন বিশ্ব ক্রিকেটের সেরা চার অলরাউন্ডার। ৮৮ টেস্টে ৩ হাজার ৮০৭ রান ও ৩৬২টি উইকেট পান ইমরান। আর ১৭৫টি ওয়ান ডে ম্যাচে তার নামের পাশে জ্বলজ্বল করছে ৩ হাজার ৭০৯ রান ও ১৮২ উইকেট।

তবে সেরা সাফল্য অস্ট্রেলিয়ার মাঠে ইমরানের অধিনায়কত্বে পাকিস্তানের একমাত্র বিশ্বকাপ জয়। ১৯৯২ সালের সেই পাকিস্তান দলে প্রতিভা থাকলেও টিম হিসেবে তারা ছিল ছন্নছাড়া। সেই দলকেই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে প্রথমবার বিশ্বকাপ এনে দেয়ার পর জাতীয় নায়ক হয়ে ওঠেন ইমরান।

ক্রিকেট থেকে অবসরের পর অন্য ক্রিকেটাররা যেখানে কমেন্ট্রি বক্স বা কোচিংয়ে নিজেদের ভবিষ্যৎ খুঁজে নেন, সেখানে ১৯৯৬ সালে ইমরান পা বাড়ান ঘোর অনিশ্চয়তায় ঢাকা পাকিস্তান রাজনীতির কানা গলিতে।

১৯৯৬ সালের ২৫ এপ্রিল নিজের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) গঠন করেন ইমরান। কিন্তু ক্রিকেটের মতো রাজনীতিতে চটজলদি সাফল্য পাননি ইমরান। প্রায় দেড় দশক ধরে পার্লামেন্টে তার দল পিটিআইকে হাতে গোনা আসন নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে। তবু হাল ছাড়েননি লড়াকু ‘ক্যাপ্টেন’।

খেলা যে ঘুরছে, তার প্রথম ইঙ্গিতটা পাওয়া গিয়েছিল ২০১১ সালে। ওই বছরের ৩০ অক্টোবর তারিখে ইমরান একটি মিছিল আয়োজন করেছিলেন। সেই মিছিলে প্রায় ২ লাখ মানুষের ভিড় হয়েছিল বলে দাবি।

পাকিস্তান রাজনীতির ইতিহাসে সেই মিছিল ছিল অন্যতম বড় মিছিল। আর এবারের নির্বাচনে তার দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও সবচেয়ে বেশি আসন দখলের সুবাদে ইমরানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া কার্যত নিশ্চিত।

১৯৯২ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা পাকিস্তানের ইতিহাসে এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় বলেই মনে করা হয়। সন্ত্রাসবাদ আর সহিংসতার আগুনে জ্বলতে থাকা পাকিস্তানকে ইমরান ও তার ছেলেরা বিশ্বের সামনে নতুন এক ভাবমূর্তিতে তুলে ধরেছিলেন। ফের একবার তার হাত ধরেই মাথা তুলে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছে পাকিস্তানি জনতা।

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদওয়াজাহাতি জোড়ে অংশ নিতে ঢাকায় আল্লামা শাহ আহমদ শফী
পরবর্তি সংবাদজয়কে হত্যার ষড়যন্ত্রে মাহমুদুর-শফিক জড়িত: প্রধানমন্ত্রী