লেখকের প্রশ্নবিদ্ধ আদর্শ নয়, ভাষাটা গ্রহণ করতে হবে: শরীফ মুহাম্মদ

ওমর ফারুক:

খ্যাতিমান সাহিত্যিকদের বই পড়ার ক্ষেত্রে অথবা যাদের আদর্শের জায়গাটা প্রশ্নবিদ্ধ তাদের বই পড়া ও ভাষা চর্চার ক্ষেত্রে লেখার ধরণ, ভাষাটাই আহরণ করতে হবে। তাদের ব্যক্তিত্ব বা আদর্শ দ্বারা প্রভাবিত হওয়া যাবে না।

গতকাল শুক্রবার কিশোরগঞ্জে উম্মুল ক্বোরা তমুদ্দুন মজলিস ও ইনিস্টিটিউট অব জার্নালিজম এন্ড দা’ওয়াহ এর আয়োজনে লেখালেখি ও সাংবাদিকতা কর্মশালায় ইনিস্টিটিউট অব জার্নালিজম এন্ড দা’ওয়াহ এর চেয়ারম্যান মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সহজ ভাষায় লিখতে হবে। লিখতে হলে আপনাদেরকে নমুনা পাঠ করতে হবে। আপনাকে ছোট গল্প লিখতে হলে বেশি বেশি ছোট গল্প পড়তে হবে, তারপর লিখতে হবে। ছড়া লিখতে হলে এ যুগের ছড়াকার বা একযুগ আগের ছড়াকারদের ছড়া পড়তে হবে। ছড়া-গল্পের ক্ষেত্রে আপনাকে রবীন্দ্রনাথ, কবি আল মাহমুদ, আনিসুল হক পড়তে হবে।

সাংবাদিকতা ও লেখালেখি কর্মশালাটি লেখক-সাহিত্যিক আবুল কালাম মাহবুবের সভাপতিত্বে মাওলা আব্দুল্লাহ সাকীর সঞ্চালনায় কোরআনের তিলাওয়াতের মাধ্যমে বিকাল ৪ টায় শুরু হয়ে রাত ৮ টা পর্যন্ত চলে।
কর্মশালায় সাংবাদিকতা ও লেখালেখির প্রায় ১০-১২ বিষয় নিয়ে দিক নির্দেশনামূলক আলোচনা করা হয়।
কর্মশালায় প্রফেসর শফিকুল ইসলাম, প্রফেসর উমফ ফারুক সাদী, মাওলানা ইলিয়াস কাসেমী, মাওলানা তানভির এনায়েত, মাওলানা আব্দুর রহমান এবং তমুদ্দুন মজলিসের আহব্বায়ক মাওলানা আব্দুল্লাহ সাকীসহ অর্ধশতাধিক মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে প্রফেসর শফিকুল ইসলাম বলেন, সাহিত্য একটি সৌন্দর্য্যপূর্ণ বিষয়। সাহিত্যের জগতটা অনেক সম্প্রসারিত। বাংলা ভাষার সাহিত্যিকদের যে কীর্তি রয়েছে তাদের থেকে আমাদের অনেক কিছু নেয়ার রয়েছে। ইসলামের সৌন্দর্যটা সাহিত্যের ভাষায় প্রকাশ করতে হবে।