হাদিসের আলোকে প্রিয় নবী স. এর পছন্দের খাবারগুলো

ফাতেহ ডেক্স: প্রত্যেক যুগেই মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তাঁর প্রতিনিধি প্রেরণের মধ্য দিয়ে মানব সমাজে সভ্যতার ক্রম বিকাশ ঘটিয়েছেন। শিখিয়ে দিয়েছেন কোনটি ভালো কি মন্দ। আলো-অন্ধাকারের পার্থক্য যেমন শিখিয়েছেন তেমনই মানব সমাজের জন্য সর্বক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ অনুকরণীয় দিক কী হতে পারে তারও দৃষ্টান্ত রেখেছেন। আমরা হলাম সর্বশেষ নবী মুহাম্মাদ স. এর উম্মত। আমাদের আইডল আমাদের প্রিয়নবী স.।তাঁর অনুকরণ ও অনুসরণের মধ্যেই আমরা খুঁজে পাই পরকালিন শান্তির সুগম পথ। তাঁর রেখে যাওয়া প্রতিটি কাজই যেন কিয়ামত অব্দি মানুষের কল্যাণের পথ নির্দেষ করে যায় দৃঢ়চিত্তে। এজন্যই পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে “রাসুল স. এর মাঝে তোমাদের জন্য রয়েছে উত্তম আদর্শ।” মানব জীবনে এমন কোন দিক নেই যার উত্তম আদর্শ রাসুল স. এর জীবনিতে পাওয়া যায় না।

আজ আমরা জেনে নিবো হাদিসের আলোকে দৈনন্দিন জীবনে আমাদের সেই প্রিয় মানুষটির খাদ্য তালিকায় প্রিয় খাবারগুলো কেমন ছিলো। আজকের আধুনিক বিজ্ঞানের গবেষনার যুগে এটি প্রমাণিত যে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) যেসব খাবার গ্রহণ করতেন, তা ছিল সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। নিম্নে সংক্ষেপে রাসুল (সা.)-এর প্রিয় খাদ্য তালিকায় থাকা সেসব খাবারের আলোচনা বিবৃত হলো।

পনির: পনির ছিলো রাসূল স. এর প্রিয় খাবারের একটি। এসম্পর্কে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, তাবুকের যুদ্ধে রাসুল (সা.)-এর কাছে কিছু পনির উপস্থাপন করা হয়। রাসুল (সা.) বিসমিল্লাহ পড়ে একটি চাকু দিয়ে সেগুলো কাটেন এবং কিছু আহার করেন। (আবু দাউদ : ৩৮১৯)

খেজুর: আরব সহ সারাবিশ্বে অত্যন্ত পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ যে খাবারটি অধিক সমাদৃত তা হচ্ছে খেজুর। রাসুল স. এর প্রিয় খাবারের তালিকায় খেজুর সম্পর্কে হজরত ইবনাই বিসর আল মুসলিমাইন (রা.) থেকে বর্ণিত, তাঁরা উভয়ে বলেন, ‘একবার আমাদের ঘরে রাসুল (সা.) আগমন করেন। আমরা তাঁর সম্মুখে মাখন ও খেজুর পরিবেশন করি। তিনি মাখন ও খেজুর পছন্দ করতেন। ’ (তিরমিজি : ১৮৪৩)

মিঠাই ও মধু: হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘রাসুল (সা.) মিষ্টান্ন ও মধু পছন্দ করতেন। ’ (বুখারি, ৫১১৫; মুসলিম, ২৬৯৫) বুখারি শরিফের আরেকটি হাদিসে রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘মধু হলো উত্তম ওষুধ। ’ (৫৩৫৯)

ঘি মাখা রুটি : হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) একদিন বলেন, ‘যদি আমাদের কাছে বাদামি গমে তৈরি ও ঘিয়ে সিক্ত সাদা রুটি থাকত, তাহলে সেগুলো আহার করতাম। অত:পর আনসারি এক সাহাবি এই কথা শুনে এ ধরনের রুটি নিয়ে আসেন…। (ইবনে মাজাহ : ৩৩৪০)

দুধ: হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, ‘মিরাজের রাতে বায়তুল মাকদিসে আমি দুই রাকাত নামাজ পড়ে বের হলে জিবরাইল (আ.) আমার সম্মুখে শরাব ও দুধের আলাদা দুটি পাত্র রাখেন। আমি দুধের পাত্রটি নির্বাচন করি। জিবরাইল (আ.) বললেন, ‘আপনি প্রকৃত ও স্বভাবজাত জিনিস নির্বাচন করেছেন। ’ (বুখারি : ৩১৬৪, তিরমিজি, ২১৩)

 

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদকিশোরগঞ্জের অষ্ট্রগামে বিদআতিদের হামলা বাড়ি-ঘরে আগুন
পরবর্তি সংবাদগাজীপুর সিটি নির্বাচন: নিরাপত্তা নিশ্চিতে ৩০ প্লাটুন বিজিবি মাঠে