প্রতিবাদ- বিক্ষোভের মুখে হল্যান্ডে মহানবী সা. এর ব্যঙ্গচিত্র প্রতিযোগিতা বন্ধ

ফাতেহ ডেস্ক :

পৃথিবীর দেশে দেশে প্রতিবাদ -বিক্ষোভের মুখে শেষ পর্যন্ত নেদারল্যান্ডে মহানবী সা. এর ব্যঙ্গচিত্র প্রতিযোগিতা আয়োজন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। জং, জিও নিউজসহ পাকিস্তানের কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম এ খবর জানিয়েছে।

জানা গেছে, বিশ্বব্যাপী প্রতিবাদের মুখে ব্যঙ্গচিত্র প্রতিযোগিতার পরিকল্পনা থেকে বিরত থাকার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির বিরোধী-দলীয় এমপি গ্রিট উইল্ডারস নিজেই। ইসলামবিদ্বেষী নেদারল্যান্ডের এ নেতাই বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) – এর ব্যঙ্গচিত্র আঁকার প্রতিযোগিতা আয়োজন করেছিল।

এক বিবৃতিতে গ্রিট উইল্ডারস জানায়, মহানবী সা. কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রতিযোগিতার আয়োজনের সিদ্ধান্ত থেকে সে বিরত থাকবে। শুক্রবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমদু কুরাইশি হল্যান্ডে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতের বরাত দিয়ে দেশটির গণমাধ্যমকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

পাকিস্তান সরকার এ বিষয়ে জোরালো প্রতিবাদ জানিয়েছিল। পাকিস্তানের দাবি, তাদের প্রতিবাদের কারণে গ্রিট উইল্ডারস এমন সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে। পাকিস্তান বিষয়টি নিয়ে নেদারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে তাদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছে বলেও মাহমুদ কুরাইশি জানান।

এদিকে এ প্রতিযোগিতার পরিকল্পনার প্রত্যাহারের ঘোষণা আসার পর পাকিস্তানের ইসলামি রাজনৈতিক দল তেহরিকে লাব্বাইক সরকারের সাথে আলোচনা করে ইসলামাবাদে তাদের ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল স্থগিত করেছে। পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফুয়াদ চৌধুরী এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, হল্যান্ডে মহানবী সা. কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রতিযোগিতার পরিকল্পনার প্রত্যাহারে পাকিস্তান সরকার ও জনগণের বড় সাফল্য।

উল্লেখ্য, চলতি বছরে ইসলামবিদ্বেষী নেতা গ্রিট উইল্ডারসের মহানবী সা. কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রতিযোগিতা আয়োজন করার ঘোষণার পর থেকেই মুসমিলবিশ্ব এর প্রতিবাদ করে আসছিল। এ নিয়ে গত সপ্তাহেও মুসলিম দেশগুলো প্রতিবাদ বিক্ষোভে উত্তাল ছিল। বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ ধরণের পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে।

এর আগে বুধবার পাকিস্তানে এ প্রতিযোগিতা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে দেশটির ইসলামি দল তেহরিকে লাব্বাইক। ওই বিক্ষোভ সমাবেশে ১০ হাজারের বেশি মানুষ অংশ নেয়। এছাড়া ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) এক বিবৃতিতে এ জাতীয় ন্যাক্কারজনক আয়োজনের নিন্দা জানায়। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও বিষয়টি ওআইসিসহ জাতিসংঘে উত্থাপনের ঘোষণা দেন। সরকারের তরফ থেকে এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কিছু না বলা হলেও বাংলাদেশের কয়েকটি ইসলামি রাজনৈতিক দল বিক্ষোভের ঘোষণা দিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদঈদের ১৩ দিনে ২৩৭ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২৫৯
পরবর্তি সংবাদপদ্মা সেতুঃ শেষ হতে আরো তিন বছর লাগতে পারে