হাটহাজারীর ছাত্র রহস্যজনকভাবে খুন, মাদরাসা ও পুলিশ যা বলছে

বেশ কয়েকদিন নিখোঁজ থাকার পর রহস্যজনকভাবে খুন হয়েছেন চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার দাওরায়ে হাদিস জামাতের একজন ছাত্র। গত ২৩ নভেম্বর বি-বাড়িয়া সদর থানার মালিহাটা এলাকার একটি ডোবা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় তাঁর কর্দমাক্ত লাশ উদ্ধার করে স্থানীয় পুলিশ।

নিহত ছাত্রের নাম আলি আকবর। বাড়ি ভোলা জেলার দৌলতখানি থানার চরসুরভী গ্রামে।

এ ব্যাপারে হাটহাজারী মাদরাসার দায়িত্বশীল দুই জন শিক্ষকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা ফাতেহ টুয়েন্টিফোরকে জানিয়েছেন, ঘটনার ব্যাপারে তাঁরা বিস্তারিত কিছু জানেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবরটা পড়েছেন কেবল। ছাত্রটিকেও তাঁরা ভালোভাবে চেনেন না।

তবে আলি আকবরের সহপাঠী দাওরায়ে হাদিসের বেশ কয়েকজন ছাত্র ফাতেহের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, গত ২০ নভেম্বর থেকে আলি আকবর মাদরাসায় অনুপস্থিত ছিলেন।

বি-বাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি মুহাম্মদ সেলিমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফাতেহকে বলেন, ‘গত ২৩ তারিখ বি-বাড়িয়া সদরের মালিহাটা এলাকার একটি ডোবা থেকে ১৮/১৯ বছর বয়সী একজন তরুণের লাশ উদ্ধার করে আমাদের একটি ফোর্স। লাশটির পরিচয় উদ্ধারের জন্য নিয়মানুযায়ী আমরা তৎক্ষণাৎ দেশের প্রতিটি থানায় এ ব্যাপারে ইনফর্ম করি।

‘সে অনুযায়ী দু’দিন আগে ভোলার দৌলতদিয়া থানা থেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয় এবং নিহত আলি আকবরের অভিভাবকরা আমাদের থানায় আসেন। এসে তাঁরা লাশ আইডেন্টিফাই করেন। ময়না তদন্তের পর আদালতের নির্দেশে গতকাল (৩০ নভেম্বর শুক্রবার) সকালে তাঁদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।’

হত্যার কারণ কী হতে পারে জানতে চাইলে ওসি সেলিম বলেন, ‘আমরা তদন্ত করছি। এখন পর্যন্ত কোনো ক্লু পাওয়া যায়নি।’