ইয়েমেনে অপুষ্টিতে ভুগছে ১৮ লাখ শিশু

ফাতেহ ডেস্ক: যুদ্ধবিদ্ধস্ত ইয়েমেনে বেড়ে চলেছে অপুষ্টিতে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা। গৃহযুদ্ধে গত তিন বছরে নিহত ১০ হাজার মানুষ। এরই মাঝে বাড়ছে রোগের প্রকোপ। নিরাময়যোগ্য এসব রোগে আক্রান্ত রোগীরা মারা যাচ্ছে পর্যাপ্ত সেবার অভাবে। তাই বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমন অবস্থায় শিশু মৃত্যুর হার বেড়ে গেলে আরও বড় ধরণের বিপর্যয়ে পড়বে মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটি।

ইউনিসেফের তথ্যমতে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় মানবিক বিপর্যয়ের মুখে এখন ইয়েমেন।

তিন বছরের গৃহযুদ্ধে দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্ত দেশটি। অর্থনৈতিক মন্দার সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে দ্রব্যমূল্য। বেকারত্বের হার বেড়ে যাওয়ায় বাচ্চাদের জন্য খাবার দুধ পর্যন্ত কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন অভিভাবকরা।

হাসপাতালের চিকিৎসায় অপুষ্টি থেকে সাময়িক রেহাই মিললেও পর্যাপ্ত সেবা শুশ্রূষা ও পুষ্টিকর খাবারের অভাবে বার বার অসুস্থ হয়ে পড়ছে এখানকার শিশুরা।… কলেরার পর এবার ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। আর জাতিসংঘ বলছে, নিরাময়যোগ্য রোগেই মারা যাচ্ছে ইয়েমেনের বেশিরভাগ শিশু।

পুষ্টিবিদ সাওসান হুসেইন হাতেম আল-হাবাবি বলেন, “এখানকার অবস্থা সত্যিই ভয়াবহ। দুই বছর আগে আমরা যখন ক্লিনিক চালু করি তখন তেমন একটা রোগী পাওয়া যেত না। তবে সানায় সামরিক অভিযান শুরুর পর রোগীর সংখ্যা আশংকাজনক হারে বাড়ছে”।

তাইজের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ডা: এলান আব্দুল হক বলেন, “আমাদের এখানে চারশ রোগি ডেঙ্গুজ্বরের লক্ষণ নিয়ে ভর্তি হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩ জনের মৃত্যু হয়। আরও ৪০ জন আশংকাজনক অবস্থায় আছে”।

এই মুহূর্তে মানবিক সহায়তার অভাবে রয়েছে ইয়েমেনের এক তৃতীয়াংশ মানুষ। সেনা অভিযান যতই দক্ষিণে অগ্রসর হচ্ছে ততই বাড়ছে গৃহহীনের সংখ্যা।

আরব জোটের হুতি বিদ্রোহী দমন অভিযানে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা আর অর্থনৈতিক ধসে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। জাতিসংঘের তথ্য বলছে, অনাহার আর অপুষ্টিতে ভুগছে দেশের ১৮ লাখ শিশু। তিন বছরের গৃহযুদ্ধে মানবেতর জীবন যাপন করছে ২ কোটি ২০ লাখ লোক, যাদের মধ্যে এখনও গৃহহীন ৩০ লাখ মানুষ।

সংকট নিরসনে চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘের মধ্যস্ততায় জেনেভায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবার কথা থাকলেও তেমন আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না কোন পক্ষ। তাই অনিশ্চয়তা বাড়ছে এই শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে।

বিজ্ঞাপন
আগের সংবাদধর্মীয় মূল্যবোধ যেভাবে রুখতে পারে আত্মহত্যার প্রবণতা
পরবর্তি সংবাদবাংলাদেশে আত্মহত্যার পরিসংখ্যান